1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
অবৈধ বালু তোলা ব্যবসা - মুক্তকথা
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন

অবৈধ বালু তোলা ব্যবসা

আব্দুল ওয়াদুদ॥
  • প্রকাশকাল : বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০২৩
  • ৬৬৫ পড়া হয়েছে

মাসে বিক্রি হয় প্রায় সাড়ে ৫কোটি টাকার বালু

অবৈধ পথে বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না

মৌলভীবাজার জেলা জুড়ে বালু উত্তোলন হচ্ছে কোটি কোটি টাকার

পাহাড়ি ছড়া, চা বাগান ও পর্যটন জেলা হিসেবে পরিচিত মৌলভীবাজার। এ জেলায় প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর। জেলার ৭টি উপজেলায় দৈর্ঘ্যতম বহু বালুছড়া রয়েছে। স্থানীয় জেলা প্রশাসন বালুমহাল ইজারা দিয়ে অতীতে কোটি টাকার রাজস্ব পেয়েছে।
কয়েক বছর যাবৎ বিভিন্ন জটিলতা ও সময়মত এসব বালুমহাল ইজারা না দেয়ায় স্থানীয় বালুখেকোরা প্রভাব খাটিয়ে দিন-দুপুরে অবৈধপথে সিলিকা বালুসহ অন্যান্য বালু উত্তোলন করে আসছে।

জেলা প্রশাসনের এক সূত্র থেকে জানা গেছে, জেলা জুড়ে এ পর্যন্ত ১৯টি এলাকার বালুমহাল টেন্ডার প্রক্রিয়া হয়েছে। অবশিষ্ট ৫০টি সিলিকা বালু ও সাধারণ আরও ২১টি বালুমহাল এখনো টেন্ডার প্রক্রিয়ায় যায়নি। এ কারণে প্রায় ১ কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার।

এদিকে বালুখেকোদের প্রভাবে এসব এলাকার সাধারণ নাগরিক মুখ খুলে প্রতিবাদ করার সাহস পাননা। স্থানীয়দের কারো মৌখিক অভিযোগে স্থানীয় ইউএনও ও এ্যাসিল্যান্ড বালু মহালে অভিযান চালাতে গেলে বালু খেকোরা আগেই খবর পেয়ে যায়। তখন সরেজমিনে গিয়ে প্রশাসন তাদের কাউকে দেখতে না পেয়ে ফিরে আসেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় অনেক মানুষ জানান, “এসব বালুখেকোদের সাথে প্রশাসনের কারও না কারও যোগসাজশ তো রয়েছেই। নইলে তারা দিন-দুপুরে বালু উত্তোলন করার সাহস পায় কি করে”।
জেলার রাজনগর উপজেলার কুশিয়ারা নদীর জাহিদপুর,আব্দুল্লাহপুর এলাকার নির্জন স্থান
থেকে স্থানীয় এসকল বালুখেকোরা দিন-রাত অবৈধপথে কোটি কোটি টাকার বালু উত্তোলন করে ভাটি এলাকাসহ সিলেটের বালাগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ ও গোলাপগঞ্জ এলাকায় বিক্রি বিক্রি করে। মাঝে মধ্যে স্থানীয় প্রশাসন সরেজমিনে এসে হাতে-নাতে ধরে যৎ সামান্য জরিমানা করতো। কিন্তু বালু উত্তোলনের পিছনের শক্তি রাঘব-বোয়ালরা অধরাই রয়ে যায়।

 

 

মৌলভীবাজার সদর উপজেলার কুশিয়ারা নদীর সুমারাই ও মৌলভীবাজার শহর ঘেঁষা সদর উপজেলার মনু নদের দূর্লভপুর,নদের কুলাউড়া উপজেলার চাতলা পুর ও শ্রীমঙ্গল উপজেলার ভূনবীর, সিন্ধুরখান ছড়া ও জেলার রাজনগর উপজেলার মারুয়াছড়া,ধামাইছড়া,কালামুয়াছড়াসহ নিলামে না যাওয়া আরও প্রায় ৭১টি বালুমহাল ও নদ-নদী থেকে দীর্ঘদিন ধরে বালু উত্তোলন হয়ে আসছে। এখানকার স্থানীয়রা বলেছেন, সিলিকা বালু মহাল থেকে প্রতিদিন অবৈধপথে প্রায় ৯ লাখ টাকার, সাধারণ বালুমহাল থেকে ২ লাখ ১০ হাজার,কুশিয়ারা নদী থেকে ৫০ হাজার টাকা ও মনূ নদ থেকে প্রতিদিন আরো প্রায় ৭০ হাজার টাকার বালু বিক্রি করা হয়। এই হিসেবে সবগুলো বালুমহাল থেকে প্রতি মাসে ৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকার বালু বিক্রির লেনদেন করা হয়।

সরেজমিনে রাজনগর উপজেলার মারুয়াছড়া,কালামুয়া ও ধামাইছড়ায় গেলে দেখা যায়, দিন-দুপুরে ছড়া থেকে যত্রতত্র বালু উত্তোলনসহ ট্রাকে বুঝাই করে সিলিকা বালু চড়া দরে বিক্রি করা হচ্ছে। স্থানীয় ও পরিবেশবিদরা বলেছেন, যত্রতত্র বালু উত্তোলন করায় নদী ভাঙ্গন ও চা বাগানের চলাচলের জায়গা ভেঙ্গে যাওয়াসহ পরিবেশের মারাত্ত্বক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজনগর উপজেলার মারুয়াছড়া এলাকার পানিশাইল গ্রামের দুই ব্যক্তি বলেন, বালু সিন্ডেকেট চক্রের ৭/৮ ব্যক্তি দেদারছে ওই ছড়া থেকে দিন-রাতে বালু উত্তোলন করে আসছে। তারা উপর মহলে সাপ্তাহিক ও মাসিক মোঠা অংকের চাঁদা দিয়ে বুক ফুলিয়ে বালু বিক্রি করে। তাদের বিরুদ্ধে স্থানীয় কেউ কথা বলার সাহস পান না। তারা বলেন, এক বোঝাই ট্রাক ভর্তি বালু ৩ হাজার টাকা ও ১ বোঝাই নৌকা ভর্তি বালু ১ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। এভাবে তারা ওই ছড়া থেকে প্রতিদিন প্রায় ২০ থেকে ৩০ টাকার বালু বিক্রি করে থাকে। গ্রামের ওই দুই যুবক আরো জানান, বর্ষা মৌসুমে ছড়া থেকে নৌকা বোঝাই করে পাশের কুশিয়ারা নদীর কালারবাজারের ওপারের ডেকাপুর এলাকায় স্তুপ ভর্তি করে রাখা হয়।

মৌলভীবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মোঃ মাঈদুল ইসলাম বলেন, পরিবেশ রক্ষায় সংশ্লিষ্টদের নিয়ে এসব এলাকায় অভিযান চালিয়েছি। বালু সিন্ডিকেড চক্র রাতের অধারে তাদের কার্য সম্পন্ন করে। এতে কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা।

রাজনগরের ইউএনও ফারজানা আক্তার মিতা বলেন, মারুয়াছড়া,কালামুয়া ও ধামাইছড়ায় অবৈধপথে বালু উত্তোলন হচ্ছে এমন তথ্য পাইনি। পেলে আমরা অভিযান চালিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো।

মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ আব্দুল হক বহু জায়গায় বালুমহাল ইজারা হয়নি এমনটা স্বীকার করে রোববার দুপুরে বলেন, বালুমহালগুলো ইজারা দিতে কোন সমস্যা নেই, পর্যায়ক্রমে ইজারায় যাচ্ছে। অবৈধপথে বালুমহাল থেকে উত্তোলনের বিষয়ে তিনি বলেন, অবৈধভাবে কোথাও বালু উত্তোলন হলে আমরা মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে অভিযান চালাচ্ছি।

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT