1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
চা বাগানগুলোতে চলছে জুয়ার মহোৎসব - মুক্তকথা
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

চা বাগানগুলোতে চলছে জুয়ার মহোৎসব

সংবাদদাতা
  • প্রকাশকাল : সোমবার, ৩১ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৭১৪ পড়া হয়েছে

আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা রহস্যজনকভাবে নিরব

jua-1-400x225মৌলভীবাজার দফতর থেকে: রোববার, ৩১শে অক্টোবর ২০১৬।।  কমলগঞ্জের চা বাগানগুলোতে দিবা রাত্রিতে চলছে জুয়ার মহোৎসব।  হিন্দু ধর্মীয় কালি পূজাকে কেন্দ্র করে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ২২টি চা বাগানে গত তিন দিন ধরে দিবা রাত্রিতে প্রকাশ্যে চলছে জুয়ার মহোৎসব। চা বাগানের ছাত্র, যুবক ও কিশোররাও জড়িয়ে পড়েছে জুয়া খেলায়। চা বাগানের বাইরের পেশাদারী জুয়াড়ীরা প্রতি রাতে চা বাগান এলাকা থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। দিবা রাত্রি প্রকাশ্যে জুয়ার আসর বসলে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা রহস্যজনকভাবে নিরবতা পালন করছেন বলে সাধারণ মানুষের অভিযোগ।

কমলগঞ্জের শমশেরনগর, আলীনগর, কানিহাটি, মাধবপুর, কুরমা, পদ্মছড়া চা বাগান এলাকা ঘুরতে গেলে প্রকাশ্যে জুয়ার আসর বসার দৃশ্য দেখা যায়। সাধারন চা শ্রমিকদের মাঝে জনশ্রুতি আছে কালি পূজার সময় সারারাত চা বাগান এলাকায় জুয়ার আসর বসে। এ জনশ্রুতিকে কেন্দ্র করে এখন প্রতি বছরই কালি পূজার এক দিন আগে থেকে শুরু করে টানা এক সপ্তাহ চা বাগানের প্রতিটি রাস্তায় প্রকাশ্যে বসে জুয়ার আসর। দিনের বেলা ও সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত চা শ্রমিক পরিবারের সদস্যরা নিজেদের আয়ের টাকা দিয়ে জুয়া খেলে পরবর্তীতে ঘটি বাটি বিক্রি করেও জুয়া খেলে থাকে। রাত বেড়ে যাবার সাথে সাথে জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পেশাদার জুয়াড়ীরা  চা বাগানের এই জুয়ার আসরগুলিতে বসে বড় অংকের টাকায় জুয়া খেলে থাকে।

শমশেরনগর চা বাগানের অবসরপ্রাপ্ত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক অপূর্ব নারায়ন, কমলগঞ্জের সমাজ সেবক ও লেখক আহমদ সিরাজ বলেন, ভুয়া জনশ্রুতির উপর ভিত্তি করে চা বাগানের সাধারন সহজ সরল চা শ্রমিকদের ভুলিয়ে চা বাগানে কালি পূজার সময় জুয়ার মহা  উৎসব বসে। কালি পূজা এক রাতে হলেও জুয়ার আসর জমজমাট থাকে এক সপ্তাহ ধরে। তিনি আরও বলেন, জুয়া খেলা একটি সামাজিক ব্যাধি ও ক্ষতির কারক। আর কোন ধর্মেই ক্ষতিকারক জুয়া খেলা মেনে নেয় না। এতে অসহায় চা শ্রমিক পরিবার নিঃস্ব থেকে আরও নিঃস্ব হচ্ছে।

চা শ্রমিক সন্তান ইউপি সদস্য ও মাসিক চা মজদুর পত্রিকার সম্পাদক সীতারাম বীন চা বাগান এলাকায় দিনে রাতে প্রকাশ্যে জুয়ার আসরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জুয়া খেলা সম্পূর্ণরুপে বেআইনী। আর পুজায় ক্ষতি করে এমন বেআইনী কিছু করা ঠিক নয়। আসলে সহজ সরল চা শ্রমিকদের ও তাদের পরিবার সদস্যদের সরলতার সুযোগে জনশ্রুতিকে কাজে লাগিয়ে বাগানের বাইরের পেশাদার জুয়াড়ীরা এসব করছে। বিষয়টি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা দেখেও কেন নিরবতা পালন করছে তা তার বোধগম্য নয়। শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ কালি পূজার সময়ে চা বাগান গুলোতে প্রকাশ্যে জুয়ার আসর বসার কথা স্বীকার করে বলেন, পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা চাইলে এই জুয়ার আসর আধা ঘন্টায় বন্ধ করে দিতে পারে।

শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা উপ পরিদর্শক আবু সায়েম মো: আব্দুর রহমান বলেন, চা বাগানের কোথাও জুয়ার আসর বসেনি। তবে কালি পূজা উপলক্ষে চা শ্রমিকরা হাল্কা আকারে জুয়া খেলার আয়োজন করেছিল। তিনি সেই জুয়ার আসর উচ্ছেদ করেছেন।

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT