1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
মঙ্গলে আবার মিলল প্রাচীন সভ্যতার স্তম্ভ? নাসা কী বলছে? - মুক্তকথা
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন

মঙ্গলে আবার মিলল প্রাচীন সভ্যতার স্তম্ভ? নাসা কী বলছে?

সংবাদদাতা
  • প্রকাশকাল : শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ৫৫৬ পড়া হয়েছে

লন্ডন: শুক্রবার, ২৭শে মাঘ ১৪২৩।। ‘লাল গ্রহ’ মঙ্গলে আবার মিলল প্রাচীন সভ্যতার স্তম্ভ? নাসা কী বলছে? এমন শিরোনাম দিয়ে গত ১৭ই ডিসেম্বর ২০১৬, সুজয় চক্রবর্তী লিখেছিলেন আনন্দবাজারে। তিনি গল্পের ভাষায় খুবই প্রানবন্ত করে শুরু করেছিলেন এভাবে- ‘সভ্যতার (সিভিলাইজেশন) চিহ্ন’ মিলল আমাদের বড় কৌতূহলের ‘লাল গ্রহ’ মঙ্গলে!

মঙ্গলে এই সেই তিন ‘টাওয়ার’…

একেবারে একটি সরলরেখায় নির্দিষ্ট দূরত্বের ব্যবধানে মঙ্গলের পিঠে মাথা উঁচিয়ে রয়েছে তিন-তিনটি স্তম্ভ বা মিনার বা ‘টাওয়ার’! সেই ‘টাওয়ার’গুলির  ছবি দেখিয়ে একদল ‘কনস্পিরেসি থিয়োরিস্ট’ বিজ্ঞানীর দাবি, ‘লাল গ্রহে’ যে এখনও রয়েছে প্রাণের অস্তিত্ব (বা, আরও সঠিক ভাবে ‘সভ্যতা’র অস্তিত্ব), ওই ‘চিহ্ন’গুলিই তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ। শুধু ‘ঠুনকো’ দাবি নয়, তাঁরা সেই ছবির একটি ভিডিও ছড়িয়েও দিয়েছেন ইউটিউব চ্যানেলে। যাঁরা ওই ভিডিওটি ছড়িয়েছেন ইউটিউব চ্যানেলে, সেই ‘কনস্পিরেসি থিয়োরিস্ট’দের দলটির নাম- ‘মানডোডএস্কোনোসিডো’। যেটা অবাক হওয়ার মতো ঘটনা, তা হল- ওই ভিডিওয় যে স্তম্ভ (বা, মিনার) বা ‘টাওয়ার’গুলি দেখানো হয়েছে, তার প্রত্যেকটির উচ্চতা সাড়ে চার কিলোমিটারেরও বেশি (৪.৮ কিলোমিটার)। আর তিনটি ‘টাওয়ার’ই রয়েছে একটি সরলরেখায়। এবং নির্দিষ্ট দূরত্বের ব্যবধানে। ‘কনস্পিরেসি থিয়োরিস্ট’দের  বক্তব্য, অত্যন্ত উন্নত প্রযুক্তি-প্রকৌশল ছাড়া এত উঁচু ‘টাওয়ার’ বানানো সম্ভব নয়। আর মঙ্গলে যদি উন্নত বা উন্নততর সভ্যতা না থাকত বা এখনও টিঁকে থাকে, তা হলে ওই ধরনের ‘টাওয়ার’ বানানো কখনওই সম্ভব নয়। যাঁরা মঙ্গলে এখনও প্রাণ বা উন্নত সভ্যতার অস্তিত্ব রয়েছে বলে দাবি করেন, বিশ্বাস করেন ‘আনআইডেন্টিফায়েড ফ্লাইং অবজেক্ট’ (ইউএফও) পাঠায় ভিনগ্রহীরাই, তাঁদেরই বলা হয় ‘কনস্পিরেসি থিয়োরিস্ট’। তবে নাসা এই দাবি মেনে নিতে অস্বীকার করেছে।

সুজয় চক্রবর্তী তার লেখায় তিনি নিজেই প্রশ্ন তুলেছে যে, কোথা থেকে পাওয়া গেল ‘লাল গ্রহে’র ওই সুবিশাল, সুউচ্চ ‘টাওয়ার’গুলির ছবি? আবার তিনি নিজেউ তার উত্তর লিখেছেন রসিয়ে। লিখেছেন-
‘কনস্পিরেসি থিয়োরিস্ট’দের দাবি, ওই সব ছবি নাসার ‘মার্স গ্লোবাল সারভেয়ার’ ও ‘মার্স ওডিসি মিশন’ মহাকাশযানগুলির পাঠানো। কিন্তু সেগুলি কী ভাবে মঙ্গলে এল, জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা তার কোনও গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা পাননি বা যে কোনও কারণেই হোক সেই ব্যাখ্যা দিতে চাননি বলে, নাসা ওই ছবিগুলি নিয়ে সরকারি ভাবে কোনও মন্তব্য করেনি। এমন উঁচু ‘টাওয়ার’ কখনও জল বা বায়ুপ্রবাহের জন্য তৈরি হতে পারে না। ওই ‘টাওয়ার’গুলির অস্তিত্বই মঙ্গলে ‘উন্নততর সভ্যতা’র আদর্শ প্রমাণ।

দীর্ঘ দিন ধরেই অবশ্য ‘কনস্পিরেসি থিয়োরিস্ট’রা  বলে আসছেন, এখনও উন্নততর প্রাণ ও সভ্যতা টিঁকে রয়েছে ব্রহ্মাণ্ডের অন্যান্য প্রান্তে। তাঁরা এও বলে আসছেন, এখনও ‘উন্নততর সভ্যতা’র অস্তিত্ব রয়েছে ‘লাল গ্রহ’- মঙ্গলে।

নাসা বা ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির (ইএসএ বা, ‘এসা’) জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা অবশ্য বরাবরই সেই দাবি অস্বীকার করে আসছেন, সুনির্দিষ্ট কোনও তথ্যপ্রমাণ তাঁদের হাতে না থাকায়। (পরের অংশ আগামীকাল দেয়া হবে)

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT