1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
বিশ্ব ফুটবলের সম্রাট 'পেলে' আর নেই - মুক্তকথা
বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩৮ পূর্বাহ্ন

বিশ্ব ফুটবলের সম্রাট ‘পেলে’ আর নেই

বিশেষ প্রতিনিধি॥
  • প্রকাশকাল : বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৪৪৯ পড়া হয়েছে

কিংবদন্তীর ফুটবল খেলোড়ী ‘কালোমানিক’ পেলে আর নেই। ৮২ বছর বয়সে বিশ্বের অগুনতি মানুষকে কাঁদিয়ে অনন্ত অজানায় পাড়ি জমালেন ফুটবলের অবিসংবাদিত এই রাজা। সাও পাওলোর আলবার্ট আইনস্টাইন হাসপাতালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি। গতকাল বৃহস্পতিবার ২৯ ডিসেম্বর বিবিসি এক অনলাইন প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করে।

ফুটবল কিংবদন্তীর এই সম্রাটের জন্ম ১৯৪০ সালের ২৩ অক্টোবর। জন্মের পর বাবার দেওয়া নাম ছিল ‘এদসোঁ আরাঁচ দু নাসিমেঁতু‘। বিশ্ব অবশ্য এ নামে তাকে চেনেনি। ১৯৫৮ সালে ব্রাজিলের হয়ে প্রথম বিশ্বকাপ খেলেন তিনি। পর পর চারটি বিশ্বকাপে খেলেছেন। তার মধ্যে তিন বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ব্রাজিল। বিশ্বের আর কোনও ফুটবলারের তিনটি বিশ্বকাপ জয়ের নজির নেই।

ফুটবল মাঠে তার সামনে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেননি প্রতিপক্ষের কোনো রক্ষক। ফুটবলের সেই সম্রাট জীবনের খেলায় হার মানলেন মরণব্যাধি ক্যান্সারের কাছে। অবশ্য জীবনের শেষতো কোন না কোন এক বিন্দুতে হবেই। ক্যান্সারের সঙ্গে দীর্ঘ এই লড়াই শেষে বিশ্বজোড়া ভক্তদের কাঁদিয়ে অবশেষে না ফেরার দেশেই পাড়ি জমালেন ফুটবলের রাজা ‘কালোমানিক’ পেলে।

১৯৭৭ সালে অবসর নেওয়ার পরেও সাবেক এই খেলোয়াড় সারা দুনিয়ায় এখনও সবচেয়ে পরিচিত ও সম্মানিত ব্যক্তিদের একজন হয়েছিলেন, আছেন এবং থাকবেন।

 

 

 

 

পেলে কে নিয়ে কিছু তথ্য ও কাহিনী

তিনবার বিশ্বকাপ জয় করার জন্য পেলে বিখ্যাত হয়েছেন। তিনিই একমাত্র খেলোয়াড় যিনি এতবার বিশ্বকাপ জয় করেছেন। এছাড়াও তিনি তার ক্লাব ও দেশের হয়ে ১,৩৬৩টি ম্যাচ খেলে মোট ১,২৮১টি গোল করেছেন যা বিশ্বে নজিরবিহীন দলিল হয়ে আছে এবং থাকবে।

১৯৬৮ সালের ১৮ই জুন। কলাম্বিয়ার রাজধানী বোগোতায় খেলা হচ্ছিল পেলের ক্লাব সান্তোস এফসির সাথে কলাম্বিয়ান অলিম্পিক স্কোয়াডের। ওটা ছিল প্রীতি ম্যাচ। হঠাৎ করেই রেফারি গুইলেরমো ভেলাসকোয়েজ পেলেকে মাঠ ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেন। তখনও লাল কার্ডের প্রচলন ঘটেনি, সেটা শুরু হয় ১৯৭০ সালে। কলাম্বিয়ার একজন ডিফেন্ডারকে ফাউল করা এবং রেফারির মতে ওই ফুটবলারকে অপমান করার কারণে পেলেকে মাঠ থেকে চলে যেতে বলা হয়েছিল।

 

পেলের সান্তোস এফসি ফুটবল ক্লাব ছিল ষাটের দশকে বিশ্বের জনপ্রিয় ক্লাবগুলোর একটি। বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে এই ক্লাবটি তখন প্রীতি ম্যাচে অংশ নিতো। ১৯৬৯ সালের ৪ঠা ফেব্রুয়ারি, এরকম একটি প্রীতি ম্যাচ ছিল যুদ্ধ-বিধ্বস্ত নাইজেরিয়ায়। বায়াফ্রা নিয়ে তখন নাইজেরিয়াতে রক্তাক্ত গৃহযুদ্ধ চলছিল। ব্রাজিলের কর্মকর্তাগন সেসময় নাইজেরিয়ায় খেলোয়াড় পাঠাতে খুবই দুশ্চিন্তায় পরেছিলেন। ২০০৭ সালে প্রকাশিত পেলে’র আত্মজীবনীতে তিনি লিখেছেন-“এই প্রদর্শনী ম্যাচের জন্য গৃহযুদ্ধ থামানো হবে বলে” খেলোয়াড়দেরকে জানানো হয়েছিল।” খেলা চলাকালীন যুদ্ধ বন্ধই ছিল বলে পরে জানা গিয়েছিল।

 

জীবনে একবারই ব্রাজিল দলের অধিনায়ক হয়েছিলেন। তখন তাঁর বয়স ছিল ৫০বছর। ১৯৮০সালে নির্মিত সিলভেস্টার স্ট্যালোনের ছবি “এসকেপ টু ভিক্টরি”তে পেলে অভিনয়ও করেছিলেন। ছবির একটি দৃশ্যে পেলে ‘অ্যাক্রোবেটিক বাইসাইকেল কিক’ নিয়েছিলেন এবং জানা যায় যে প্রথম ‘শটে’ই তিনি এই বল মেরে সফল হয়েছিলেন।

পেলে ১৯৯০ সালে সাংবাদিকদের কাছে ঘোষণা করেছিলেন যে তিনি ব্রাজিলে ১৯৯৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। কিন্তু সেটা আর হয়নি। তবে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছিলেন ঠিকই এবং ১৯৯৫ সাল থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত টানা তিন বছর তিনি ব্রাজিলের ক্রীড়া মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

সেসময় তার নেতৃত্বে কিছু আইন তৈরি হয়েছিল যাতে পেশাদার ফুটবলারদেরকে ক্লাবের সঙ্গে দর কষাকষির ব্যাপারে কিছু ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল যা তার নিজের প্রজন্মের ফুটবলারদেরও ছিল না।

 

 

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT