1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
হাকালুকি হাওরে পাখী নিধন, যা চরমভাবে বেআইনী - মুক্তকথা
মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৩:০৭ অপরাহ্ন

হাকালুকি হাওরে পাখী নিধন, যা চরমভাবে বেআইনী

সংবাদদাতা
  • প্রকাশকাল : বৃহস্পতিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ২৫৩ পড়া হয়েছে

মুক্তকথা সংবাদকক্ষ।। রীতিমত দুঃসংবাদ।  ভয়াবহই বললে ভুল হবে না। প্রতিবছরের খবর এগুলো। বছর ঘুরে এলেই এসব খবর চোখে পড়ে। ফি বছর একই নমুনার খবর দেখে মনে হয়না  এসবের স্থায়ী কোন সমাধান আছে বলে। অথচ তা হওয়ার কথা নয়। সমাধান থাকবে না কেনো? অবশ্যই আছে। প্রতি বছর ঘুরে আসলেই সংবাদ মাধ্যম আর নববিকশিত গণমাধ্যমের পৃষ্ঠাজুড়ে ছাপা হয় হাওরের মাছ মারা, ক্ষেত্রবিশেষে জমি দখল আর পরিযায়ী অর্থাৎ বিদেশী পাখী নিধনের সংবাদ।
মৌলভীবাজার জেলায় ৩টি প্রধান হাওর রয়েছে। হাকালুকি, কাউয়াদিঘী ও হাইলহাওর। এগুলো প্রাকৃতিক জলাধার। সৃষ্টির আদি থেকেই এগুলো ছিল এবং আছে। অনেকেই হাকালুকিকে এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম হাওর বলেন। আমরাও গর্বভরে তা উচ্চারণ করি। কিন্তু কার্য্যক্ষেত্রে শিক্ষিত-অশিক্ষিত, ধনী-নির্ধন আমরা সকলেই করি তার উল্টোটা। পাখী মেরে খাই। দামী দামী মানুষ বিভিন্ন অজুহাতে কখনও লুকিয়ে আবার কখনও  প্রকাশ্যে পাখী নিধন করেন। আমাদের আশ-পাশের পাহাড়াঞ্চলে এখনতো আর হরিণ পাওয়াই যায়না। পাহাড়ই উজার হয়ে গেছে। আমরা সকলেই জানি এতে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হয় এবং শুধু জাতীয় নয় আন্তর্জাতিক আইনেও এসব কাজ অবৈধ। কিন্তু এর পরও এসবের রাশ টেনে ধরার যেনো কেউ নেই।
স্থানীয় একটি গণমাধ্যম “বড়লেখার নিউজ২৪.কম” বিস্তৃতভাবে এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন করেছে। এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকি হাওর গত ৬ মাস ধরে অরক্ষিত। সেই সুযোগে অতিথি পাখি নিধনে সংঘবদ্ধ শিকারিচক্রের সাথে এবার যোগ হয়েছে সৌখিন শিকারিচক্র। চলছে বিষটোপের পাশাপাশি ফাঁদ পেতে পরিযায়ী পাখি শিকার।
সুদূর সাইবেরিয়া ও হিমালয়ের পাদদেশ লাদাক থেকে শীতকালে দেশের বৃহত্তম অতিথি পাখির সমাগমস্থল হাকালুকি হাওরে আসে। চলতি বছর হাওরের জল্লা, হাওরখাল, ফোয়ালা, বাইয়া, মালাম, চকিয়া, নাগুয়া লরিবাই, কৈয়ারকোণা, মাইছলা, তেকোণি, তুরল ও ফুটবিলে বিভিন্ন জাত ও রঙের অতিথি পাখির সমাগম ঘটে। প্রতিবছর ৫০-৬০ প্রজাতির পরিযায়ী পাখির আগমন ঘটে এই হাওরে। এর মধ্যে অনেক বিলুপ্ত প্রজাতির পাখিও রয়েছে।

বিদেশী অতিথি পাখী। ছবি কৃতিত্ব- বড়লেখানিউজ২৪.কম

হাওরপাড়ের বাসিন্দারা জানান, হাওরতীরের বড়লেখা উপজেলার দশঘরী, ভোলারকান্দি, আজিমপুর ও খুটাউরা; জুড়ী উপজেলার বাছিরপুর, নয়াগ্রাম ও বেলাগাঁও; কুলাউড়া উপজেলার সাদীপুর এবং ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার পূর্ব যুধিষ্টিপুর, নিজ ঘিলাছড়া ও আশিঘর এলাকায় রয়েছে সংঘবদ্ধ শিকারিচক্র। এরা প্রতি বছর বিষটোপে এবং ফাঁদ পেতে অতিথি পাখি শিকার করে থাকে। এবার সেই সংঘবদ্ধ চক্রের সাথে যোগ হয়েছে সৌখিন পাখি শিকারিরা। সরেজমিন হাকালুকি হাওরে গেলে এমন তথ্য জানান হাওরে নিয়মিত যাতায়াতকারীরা।
সব চেয়ে বেশি পাখি শিকার হচ্ছে বড়লেখা উপজেলার বালিজুরি, জল্লা, ফোয়ালা, মালাম, পলোভাঙা, কালাপানি, নাগুয়া, লরিবাই, কুকুরডুবি ও পিংলা বিলে; গোলাপগঞ্জের লম্বা বিল, পলোভাঙা, হাওরখাল ও সাতঘিলা বিলে; ফেঞ্চুগঞ্জের শিকারিরা হাওরখাল, কালাপানি, রঞ্চি, মেদা, আরামডিঙা, নাগুয়া, লরিবাই, টোলার বিলে; কুলাউড়া উপজেলার ফুটবিল, হাওয়াবন্না, চকিয়া ও গৌড়কুড়ি বিলে।
একসময় এই হাওর অতিথি পাখিদের নিরাপদ অভয়াশ্রম ছিলো। কিন্তু বিগত কয়েক বছর থেকে হাওড়টিতে অতিথি পাখির আর অভয়াশ্রম নেই বললেই চলে। মূলত পরিবেশ অধিদফতরের সিডব্লিউবিএম প্রকল্প চলাকালে হাওড়টি অতিথি পাখির অভয়াশ্রম হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। এরপর সিবিএ-ইসিএ প্রকল্প চালু হলে পাখিদের অভয়াশ্রমগুলোতে মনিটরিং করা হতো। কিন্তু গত বছরের জুনে প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে অতিথি পাখির জন্য অরক্ষিত হয়ে পড়েছে হাকালুকি হাওর। অবস্থায় মনে হয়  স্থানীয় প্রশাসন হাওরে আসা অতিথি পাখির নিরাপদ বিচরণ নিশ্চিতকরণে অনেকটা উদাসীন।
হাওরতীরের বাসিন্দারা জানান, অতিথি পাখি শিকার বন্ধে মনিটরিং ব্যবস্থা চালু করা না হলে সংঘবদ্ধ শিকারিচক্রের তৎপরতা রোধ করা সম্ভব হবে না। হাওরে কর্মরত বেসরকারি সংস্থা সিএনআরএস-ক্রেল’র এক প্রকল্প কর্মকর্তা জানান, হাওরে অতীতের তুলনায় পাখি শিকার অনেকটা কমেছে। আমাদের পক্ষে পাখি শিকার রোধ করা সম্ভব নয়। আমরা শুধু সহযোগিতা করতে পারি। স্থানীয় প্রশাসনকেই এ ব্যাপারে ভূমিকা নিতে হবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুহেল মাহমুদ জানান, নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত থাকায় এ বিষয়ে খোঁজ নেয়া হয়নি। তবে পাখি শিকারিদের কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT