1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
মৌলভীবাজারে রাজনৈতিক জোড়া খুন - সিনিয়র জুনিয়রদের মধ্যে লেগে থাকা বিরোধ মূল কারণ -ওসি - মুক্তকথা
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:২১ অপরাহ্ন

মৌলভীবাজারে রাজনৈতিক জোড়া খুন – সিনিয়র জুনিয়রদের মধ্যে লেগে থাকা বিরোধ মূল কারণ -ওসি

সংবাদদাতা
  • প্রকাশকাল : মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৪৪৭ পড়া হয়েছে

আব্দুল ওয়াদুদ, মৌলভীবাজার থেকে।। মৌলভীবাজারে বহুল আলোচিত ভয়ঙ্কর হত্যাকান্ডে নিহত ছাত্রলীগ নেতা শাবাব ও মাহির বাড়িতে চলছে এখন শোকের মাতম আর অশ্রুভেজা কান্না। পুত্রদের চির বিদায় দিয়ে স্তব্ধ দুটি পরিবার। দুটি পরিবারকে সান্তনা দিতে অনেকেই ভিড় জমাচ্ছেন বাড়িতে। ছেলে হারানোর শোকে কাতর মা-বাবা ও স্বজনরা বিলাপ করছেন আর মূর্ছা যাচ্ছেন। উপস্থিত সবার কাছে অসহায় পাগলের মত ছেলেকে ফিরিয়ে দেয়ার আকুতি জানাচ্ছেন তারা। তাদের এমন আর্তনাদ আর বোবা কান্নায় ভারি হয়ে উঠছে আকাশ-বাতাস।
এই খুনের ঘটনায় উদ্বিগ্ন অভিভাবক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ও সকল শ্রেণীর মানুষ। দুটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে জেলা জুড়ে উঠেছে আলোচনা সমালোচনার ঝড়। রাজনৈতিক দ্বন্দ্বে এই প্রথম জোড়া কিশোর খুনের ঘটনায় সর্বমহলের বাসিন্দাদের মধ্যে বাড়ছে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা। স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী নিয়ে নতুন করে ভাবনায় পড়েছেন অভিভাবক ও শিক্ষকরা। এ ঘটনার পর থেকে শহর ও শহরতলী এমনকি উপজেলার স্কুলগুলোর শিক্ষার্থীরাও আতঙ্কিত। যেনো শান্তির শহরটিকে হঠাৎ করে গুমোট কালো মেঘে ঢেকে দিয়েছে। নিহত শাবাব ও মাহির বাড়িতে এমন দৃশ্যই এখন চোখে পড়ে।
সোমবার সকালে মৌলভীবাজার শহরের সৈয়দ মুজতবা আলী সড়কের সিদ্দিক মঞ্জিলের বাসায় নিহত ছাত্রলীগ নেতা সাবাবের মা সেলিনা রহমান চৌধুরী, বাবা অবসর প্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক ছেলের নানা স্মৃতি তুলে ধরে অঝোরে কাঁদছিলেন মিডিয়া কর্মীদের দেখে।
বাসায় শাবাবের দুই খালা ও অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বোন ফাতেমা সাফওয়াতসহ স্বজন ও পাড়া প্রতিবেশীরা তাদের সান্তনা দিচ্ছেন। কিন্তু কিছুতেই কান্না বন্ধ হচেছনা শোকে কাতর এই স্বজনদের। সাবাবের মা সেলিনা রহমান চৌধুরী কেঁদে কেঁদে সংবাদকর্মীদের কাছে বলেন- যাদের আমার ছেলে টিফিন খাওয়ালো, সময় দিলো, সাহায্য সহযোগিতা করলো; তারাই আমার ছেলেকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করলো! আমার ছেলে স্কুল জীবন থেকে ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। সে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সরাসরি জড়িত ছিল। রাজনীতির নেশায় সে এতটা বিভোর ছিল যে আমাদের বাধা বিপত্তিতেও দমতো না।
শাবাব অত্যন্ত মেধাবী, আকর্ষণীয় চেহারা আর সাহসী হওয়ায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাদের কাছে অত্যন্ত পছন্দের ছিল। ওই নেতারাই তাকে নানাভাবে ফুসলিয়ে রাজনীতিতে সক্রিয় করেন।
তিনি ক্ষোভের সঙ্গে প্রশ্ন রেখে বলেন,আমার ছেলে যাদের জন্য রাজনীতিতে সক্রিয় হলো-যারা আমার ছেলেকে রাজনীতিতে নিয়ে গিয়ে তাদের ফায়দা হাসিল করলো; তারা আজ কোথায়! তারা এখন নাকি বলছে আমার ছেলে ছাত্রলীগের কেউ না। তারা আগে কেন আমার বাসায় এসে ভিড় করতো।
তিনি বলেন, তুষার, ফাহিম, প্রতীক এরা আমাদের বাসায় আসতো। তাদের টিফিন খাওয়াতো শাবাব। অথচ গ্রুপিং দ্বন্ধে দলীয় হীনমন্যতায় তারাই তার ঘাতক হলো!
গত পৌর নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে সেলিনা রহমান বলেন, আমার ছেলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তাদের দলের প্রার্থীকে জয়ী করালো। তখন মিষ্টি নিয়ে হাসিমুখে ওই নেতারা আমার বাসায় এসেছিলেন। তিনি এই জোড়া খুনের ঘাতকদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে ফাঁসির আওতায় আনার জোর দাবি জানান।
অপর দিকে কনকপুর ইউনিয়নের দুর্লভপুর গ্রামে একই অবস্থা। নিহত মাহির মা জুলেখা বেগম ও বাবা বিল্লাল মিয়া মৃত্যু শয্যায়। মা এই ঘটনার পর থেকে ছেলের শোকে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন। শোকের মাতম চলছে গোটা পরিবারে। কৃষক পরিবারের ছেলে মাহিই ছিল তার পরিবারের স্বপ্ন ও সম্ভাবনার আশা। এমনটি জানান তার মামা গোলাম ইমরান আলী।
মঙ্গলবার বিকেল চারটায় মুঠোফোনে আলাপচারিতা হয় মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি সোহেল আহম্মদ এর সাথে। তিনি এসময় পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে জানান, গত দুদিনের রিমান্ডে যা এসেছে তা হালো তাদের সিনিয়র-জুনিয়দের মধ্যে বিরোধ নিয়ে এই হত্যাকান্ড। আরো অনেক বিষয়াদি আছে পরে সাক্ষাতে জানাবো।

 

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT