1. muktokotha@gmail.com : Harunur Rashid : Harunur Rashid
  2. isaque@hotmail.co.uk : Harun :
  3. harunurrashid@hotmail.com : Muktokotha :
সার্বিয়া ন্যাটো জোটের বিরুদ্ধে মামলা করেছে - মুক্তকথা
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:০০ অপরাহ্ন

সার্বিয়া ন্যাটো জোটের বিরুদ্ধে মামলা করেছে

সংবাদদাতা
  • প্রকাশকাল : বৃহস্পতিবার, ২২ জুন, ২০১৭
  • ৮১১ পড়া হয়েছে

লন্ডন: ১৯৯৯ সালে বোমা ফাটিয়ে মানুষ মারার জঘন্য অভিযোগে সার্বিয়া ন্যাটো জুটের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণের মামলা করেছে। সার্বিয়ার আইন বিশেষজ্ঞদের কথায় ‌ওই সময় যুক্তরাষ্ট্র ডেপিলেটেড ইউরেনিয়ামের গোলাবারুদ ব্যবহার করে যার ফলে সারা দেশ জুড়ে মারাত্মক সাইক ‌ও ক্যান্সার সম্পর্কিত রোগ ছড়িয়ে পড়েছে বিগত দুই দশক ধরে। ‌ওই সময় জাতিসংঘের কোন অভিমত ছাড়াই ৩মাস ধরে সার্বিয়ায় বোমা ফেলা হয়। ১,৭০০ নাগরীককে হত্যা করা হয়। সার্বিয়ার একটি অংশ বোমায় বোমায় ভেসে যায়। ‌ওই সময় চুক্তি হয়েছিল এবং জাতিসংঘ শান্তি মিশন নিয়োগ দিয়েছিল কসোবো’তে।
সার্বিয়ার এই আইনজ্ঞ দলে রয়েছেন সর্বিয়া, ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন, রাশিয়া, চীন ‌ও ভারতের আইন বিশেষজ্ঞগন। সার্বিয়ান আইন বিশেষজ্ঞ যিনি দলের নেতৃত্বে আছেন মিঃ এসারডিজান আলেক্সিক বলেন যে ওই সময় ন্যাটোর যুদ্ধ এলাকা ছিল সার্বিয়া আর এজন্যই তাদের সকল ক্ষয়-ক্ষতি পূরণ করে দিতে হবে, যারা ইউরেনিয়াম যুক্ত গোলাবারুদে মারা গেছেন বা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন তাদের।
এমন আইনী পদক্ষেপ নিতে কেনো সুদীর্ঘ ১৯ বছর সময় লাগলো এমন প্রশ্নের জবাবে আইনজ্ঞ দলের ওই নেতা এসারডিজান জানান, ওই সময় ন্যাটো ১০ থেকে ১৫টনের মতো ডেপিলেটেড ইউরেনিয়াম ব্যবহার করে যা দেশের পরিবেশ বিপর্যয়ের প্রধান কারণ ছিল। তিনি আরো বলেন, আমার মনে হয় একটি দেশের পরিবেশ বিপর্যয়ের চিন্তা থেকে এ মামলা কোনভাবেই দেড়িতে করা হয়েছে, এমন বলার কোন সুযোগ নেই।
ন্যাটো ইরাক যুদ্ধের সময় প্রথম এই ইউরেনিয়াম অস্ত্র ব্যবহার করেছিল ১৯৯১সালে। বর্তমানে ন্যাটো এ কাজের জন্য বিচারের আওতায় আনার মত আগের অবস্থায় নেই কিন্তু তাদের আকামের ফল এখন ভয়াবহ হয়ে দাড়িয়েছে। ন্যাটো সংশ্লিষ্ট দেশগুলির পক্ষ থেকে যারা সরাসরি বা আড়ালে থেকে যুদ্ধে শরিক হয়েছিলেন আমরা তাদের কাছ থেকে অর্থনৈতিক ও অর্থনৈতিক ছাড়াও সকল ধরনের ক্ষতিপূরণের আশা রাখি। যুদ্ধের ওই সময় যারা মারা গেছেন কিংবা ওই কারণে এখনও ভুক্তভোগী তাদেরকে, ন্যাটো সদস্য ১৯টি দেশকে এই ক্ষতি পূরণ করতে হবে।
ইদানিং অনুরূপ যে কয়েকটি মামলা হয়েছে তার মধ্যে উত্তর আফগানিস্তানের কুন্দুজ এলাকার ক্ষতিগ্রস্তরাও জার্মানীর বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে ক্ষতিপূরণ চেয়েছেন। ওই সময় ন্যাটোর বোমা হামলায় কুন্দুজের ডজনখানেক মানুষ মারা গিয়েছিল।
২০১১ সালে মোয়ামের গাদ্দাফির কন্যাও ন্যাটোর বোমাবাজীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ওই সময়ের বোমা হামলায় তিনি তার শিশুকন্যা, একভাই ও দুই ভাইপো’কে হারিয়েছিলেন।

এ জাতীয় সংবাদ

তারকা বিনোদন ২ গীতাঞ্জলী মিশ্র

বাংলা দেশের পাখী

বাংগালী জীবন ও মূল ধারার সংস্কৃতি

আসছে কিছু দেখতে থাকুন

© All rights reserved © 2021 muktokotha
Customized BY KINE IT